pakistan-dinajpur24(দিনাজপুর২৪.কম) টেস্ট ক্রিকেটের মজাটাই এখানে। একটি ইনিংস প্রতিপক্ষ দলের খেলোয়াড়দের রাতের ঘুম হারাম করে দিতে পারে। দর্শকদের এতে নিতে পারে প্রবল উত্তেজনা ও রোমাঞ্চ। ব্রিজবেনের গ্যাবা স্টেডিয়ামে সর্বশেষ ঘটলো এমন ঘটনা। একটুর জন্য বিশ্ব রেকর্ড গড়া হলো না পাকিস্তানের। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাত্র ৪০ রানের আফসোস। এটা সম্ভব হলে ‘আনপ্রেটিক্টেবল’ পাকিস্তান অনন্য এক নজির গড়তো। কিন্তু অবিশ্বাস্য লড়াই শেষে পাকিস্তান হারলো ৩৯ রানে। সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তান যথাক্রমে ৪২৯ ও ১৪২ রান করে। অস্ট্রেলিয়া ৫ উইকেটে ২০২ রানে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে। এতে জয়ের জন্য চতুর্থ ইনিংসে পাকিস্তানের সামনে টার্গেট দঁাঁড়ায় ৪৯০ রান। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে এত বেশি রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড একটিও নেই। চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪১৮ রান করে জেতার রেকর্ড আছে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ২০০৩ সালে। এবারও প্রায় তেমন ‘শিকার’ হয়ে বসেছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু পঞ্চম দিনে সেটা সম্ভব হয়নি পাকিস্তানের পক্ষে। চতুর্থ দিনের মধ্যভাগেই পাকিস্তানের হার নিশ্চিত হতে পারতো। বড় এ টার্গেট সামনে নিয়ে ২২০ রানে শীর্ষ ৬ উইকেট হারায় তারা। কিন্তু এরপর পুরো দিন অজি বোলারদের গলদঘর্ম করে ছাড়েন পাকিস্তানের ব্যাটসম্যান আসাদ শফিক, ওয়াহাব রিয়াজ ও মোহাম্মদ আমির। দিন শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ছিল ৮ উইকেটে ৩৮২ রান। আসাদ শফিক ১০০ ও ইয়াসির শাহ অপরাজিত ছিলেন ৪ রানে। টেস্টের পঞ্চম ও শেষ দিন জয়ের জন্য পাকিস্তানের সামনে ছিল ২ উইকেটে ১০৮ রান। আসাদ শফিক অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়কের রাতের ঘুম হারাম করে দেন কোনো সন্দেহ নেই। আজ সকালে অসম্ভব এক স্বপ্নকে বাস্তব করার জন্য দারুণ লড়াই শুরু করেন আসাদ শফিক ও ইয়াসির শাহ। নবম উইকেটে তারা যোগ করে ফেলেন ৭১ রান। জয় থেকে তখন তারা ৪১ রান দূরে। হাতে দুই উইকেট তখনও অক্ষত। ম্যাচের উত্তেজনা তখন চরমে। দর্শকদের মধ্যে পিনপতন নিরবতা। টিভি সেটের সামনে লাখো দর্শক নখ কাটছেন। পাকিস্তানের ইতিহাস গড়া দেখতে অপেক্ষায় দেশটির ক্রিকেট সমর্থকরা। কিন্তু ২২তম ওভারে ভোববাজির মতো পাল্টে গেলো ঘটনা। ৪৪৯ রানের মাথায় মিচেল স্টার্কের বলে ডেভিড ওয়ার্নারের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন আসাদ শফিক। তখন তার নামের পাশে ১৩৭ রান। ম্যাচের ভাগ্য তখন ঝুকে যায় অস্ট্রেলিয়ার দিকে। পাকিস্তানের সমর্থকদের মাথায় হাত। আর একটু দিনের শুরু থেকে যেভাবে খেলছিলেন সেভাবে খেললে আর কয়েক ওভারের মধ্যে জয় নিশ্চিত হতো তাদের। স্টার্কের ওভারের দ্বিতীয় বলে ফেরেন আসাদ শফিক। এরপর আর ৪ বল খেলতে পারে পাকিস্তান। ওই ওভারের শেষ বলে ইয়াসরি শাহকে রানআউট করেন অজি অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। দ্বিতীয় সিøপ থেকে সরাসরি থ্রো’তে ইয়াসেরর স্টাম্প ভেঙে দেন তিনি। এরই সঙ্গে শেষ হয়ে যায় পাকিস্তানের প্রতিরোধ। তারা থেমে যায় ৪৫০ রানে। ৩৯ রানের জয় নিশ্চিত হয় স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে চতুর্থ ইনিংসে চতুর্থ সর্বোচ্চ রান সংগ্রহের ঘটনা এটি। চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৬৫৪/৫ রান তোলার ঘটনা আছে ইংল্যান্ডের। ১৯৩৯ সালে ডারবানে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তারা এই ইতিহাস গড়ে। -ডেস্ক