(দিনাজপুর২৪.কম) প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উপবৃত্তির টাকা থেকে শিউর ক্যাশ এজেন্টরা উপকারভোগীদের কাছ থেকে অবৈধভাবে টাকা কেটে রাখছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সারাদেশের মতো রূপালী ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং শিওর ক্যাশ এর মাধ্যমে উপজেলার ৬৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উপবৃত্তি প্রদান করছে সরকার।
অভিভাবকদের কাছে দ্রুত উপবৃত্তির টাকা পৌঁছানোর এ উদ্যোগ প্রশংসিত হলেও পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলায় শিওর ক্যাশ এজেন্টদের অনেকে অভিভাবকদের কাছ থেকে অবৈধভাবে কমিশন কেটে রাখছেন।
মোঃ নজরুল, মোকফর, পারভীন, জালালসহ কয়েকজন অভিভাবক অভিযোগ করেন, শিওর ক্যাশের এজেন্টের কাছ  থেকে টাকা তুলতে  গেলে তারা জনপ্রতি ১৫ থেকে ২০ টাকা হারে টাকা কেটে রাখে। শিওর ক্যাশ কর্তৃপক্ষ এজেন্টদের উপবৃত্তির টাকা প্রদানের জন্য অগ্রিম কমিশন দিয়ে দেয়।
বেশ ক’জন অভিভাবকের অভিযোগের প্রেক্ষিতে কাউখালী সদরের উত্তর এবং মধ্য বাজারে রোববার সরেজমিনে গিয়ে  দেখা যায়, উপবৃত্তির টাকা থেকে ১৫ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত কেটে নিচ্ছে এজেন্টরা। সাংবাদিকরা অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার কথা জানতে চাইলে একজন বলেন, অভিভাবকরা খুশি হয়ে ১০/২০ টাকা দিচ্ছে, তাই নিচ্ছি। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি সুব্রত রায় বলেন, আমার জানা মতে সরকারিভাবে এজেন্টদের সুবিধা দেওয়া হয়েছে। তাই শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি থেকে কমিশন নেওয়ার নিয়ম নেই। রূপালী ব্যাংক কাউখালী শাখার ব্যবস্থাপক বলেন, শিওর ক্যাশে প্রাথমিক শিক্ষা উপবৃত্তির টাকা তুলতে কোনো সার্ভিস ফি লাগে না । -ডেস্ক