(দিনাজপুর ২৪ .কম) গাজা উপকূলের কাছে ইসরায়েলের একটি ‘গুপ্তচর ডলফিন’ আটকের দাবি করেছে ফিলিস্তিনের গেরিলা দল হামাস।ফিলিস্তিনের আল কুদস পত্রিকায় হামাস বলেছে, ডলফিনটির শরীরে দূর নিয়ন্ত্রিত ক্যামেরাসহ গোয়েন্দা নজরদারিতে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি পাওয়া গেছে।এছাড়াও, ডলফিনটির শরীরে আরেকটি ডিভাইস পাওয়া গেছে যেটি থেকে হারপুন ছুড়ে মানুষ পর্যন্ত মেরে ফেলা সম্ভব।হামাসের সামরিক শাখার নৌ-বাহিনীর একটি দল ডলফিনটির খোঁজ পেয়ে এটিকে তীরে নিয়ে আসে। এ ডলফিনের কোনো ছবি হামাস প্রকাশ করেনি বলে জানিয়েছে বিবিসি।’দ্য জেরুজালেম পোস্ট’ এর উদ্ধৃতি দিয়ে আরব সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, সন্দেহজনক গতিবিধির কারণে কয়েকদিন আগে ডলফিনটির দিকে হামাস কমান্ডোদের নজর পড়ে। পরে তারা এটিকে আটক করে।হামাসের নৌ কমান্ডোদের তৎপরতা ও সাগরে তাদের প্রশিক্ষণের ওপর নজর রাখার জন্য এ প্রাণীটিকে ইসরায়েল ব্যবহার করেছে বলে ধারণা করছে হামাস।তবে এ ব্যাপারে কোন প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেনি ইসরায়েল।গুপ্তচরবৃত্তিতে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে প্রাণী ব্যবহারের অভিযোগ এটিই নতুন নয়। এর আগেও গোয়েন্দাগিরির উপযোগী যন্ত্রপাতিসহ পাখি ফিলিস্তিনে ধরা পড়েছে।ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের গুপ্তচরবৃত্তিতে ব্যবহৃত সরঞ্জামসহ একটি ঈগল পাখি ২০১২ সালে আটক হয়।এ ছাড়াও, লোহিত সাগরে মোসাদ নিয়ন্ত্রিত শার্ক পাওয়ার কথা বলেছিলেন মিশরের কর্মকর্তারা।(ডেস্ক)