iraq-dinajpur24(দিনাজপুর২৪.কম) ইরানের হিল্লা শহরে শিয়া তীর্থযাত্রীদের ওপর আত্মঘাতী বোমা হামলায় কমপক্ষে একশ মানুষ নিহত হয়েছেন। নিহতদের বেশিরভাগই ইরানের তীর্থযাত্রী। শিয়াদের পবিত্র তীর্থস্থান হিসেবে গণ্য কারবালা থেকে ফেরার পথে তারা এই হামলার শিকার হন। হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস। স্থানীয় পুলিশ ও চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স, বিবিসি ও আল জাজিরা। খবরে বলা হয়, ইরাকের রাজধানী বাগদাদের একশ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত হিল্লা শহরে বৃহস্পতিবার রাতে এই আত্মঘাতী হামলার ঘটনা ঘটে। আশুরার ৪০ দিন পর শিয়া মুসলিমরা আরবাইন নামে একটি ধর্মীয় আচার পালন করে থাকে। আশুরাতে মহানবী হজরত মোহাম্মদ (সা.)-এর দৌহিত্র ইমাম হুসেইনের মৃত্যুকে স্মরণ করে শোক পালন করা হয়। শিয়া সম্প্রদায় আরবাইনকে ৪০ দিনের শোকের অবসান হিসেবে পালন করে থাকে। আরবাইনে যোগ দিতেই শিয়া মুসলিমরা সমবেত হয়েছিলেন তাদের তীর্থস্থান কারবালায়। তাদের বেশিরভাগই ছিলেন ইরানের। আরবাইন শেষ করে তারা ইরানের পথে ফিরছিলেন। পথে হিল্লাতে তাদের ওপর ট্রাকে করে বয়ে আনা আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, হিল্লা শহরের একটি গ্যাস স্টেশনে পাশেই ছিল রেস্টুরেন্ট। সেখানে তীর্থ যাত্রীদের পাঁচটি বাস যাত্রাবিরতি করে। সেখানেই ট্রাক বোমার বিস্ফোরণ ঘটে। তাতে তীর্থ যাত্রীদের বাসগুলোতে আগুন ধরে যায়। ইরাকের আরবিল থেকে আল জাজিরার হুদা আবদেল-হামিদ জানান, একটি তেলবাহী যান ওই বোমা বহন করছিল। তিনি বলেন, ‘গোটা জায়গাটি সম্পূর্ণরূপে বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছে।’ বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, তেলবাহী ওই ট্যাংকারে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটসহ অন্যান্য বিস্ফোরক রাসায়নিক ছিল। বিস্ফোরণের পর চারপাশ ধোয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলের ছবিতে দেখা যায়, চারপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বাস ও মিনিবাসগুলোর দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া অংশ। মৃতদেহগুলোকে রাস্তায় ছড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। নিরাপত্তা বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, হামলায় অনেকেই আহত হয়েছেন। তাদের অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাই নিহতের সংখ্যা আরো বেশি হওয়ার আশঙ্কা রযেছে। নিহতদের মধ্যে ইরাকি ও ইরানি ছাড়াও বাহরাইনের কিছু তীর্থযাত্রী থাকতে পারে জানিয়েছে তারা। অনলাইন এক বিবৃতিতে এই হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস। শিয়াদের ধর্মত্যাগী মনে করে থাকে এই জঙ্গি সংগঠনটি। ইরাকের মসুলে তাদের শক্তিশালী ঘাঁটি রয়েছে। সেই ঘাঁটি দখলের চেষ্টা করছে মার্কিন সমর্থিত ইরাকি বাহিনী। গত কয়েকদিনে সেখানে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ চলমান রয়েছে। মসুল দখলে ইরাকি বাহিনীর অভিযান শুরুর পর তেকেই আইএস বিভিন্ন ইরাকি শহরে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। এই হামলায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইরান। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র বাহরাম কাশেমি বলেছেন, ‘সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অব্যাহত লড়াইয়ে’ ইরাককে সহায়তা দিয়ে যেতে থাকবে ইরান। মার্কিন কর্মকর্তারাও নিন্দা জানিয়েছেন এই হামলার। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের মুখপাত্র নেড প্রাইস এক বিবৃতিতে বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র ইরাকি জনগণ ও সরকারের সঙ্গে অংশীদারিত্বে অবিচল থাকবে এবং এই হামলা আইএসকে পরাস্ত করতে আমাদের প্রত্যয়কে কেবল আরো শক্তিশালী করবে।’ -ডেস্ক