স্টাফ রিপোর্টার (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম বলেছেন, জীবনের জন্য পানি অপরিহার্য। বিশ্বের মোট জনগোষ্ঠির ৪০ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় ২৪০ কোটি মানুষ স্বাস্থ্য সম্মত জীবন যাপনের জন্য নিরাপদ ও গুনগম মান সম্পন্ন পানির সুবিধা থেকে বঞ্চিত। প্রতি বছর প্রায় ৫০ লাখ মানুষ পানি বাহিত রোগের শিকার হয়ে মৃত্যুবরণ করছে। পৃথিবীর ৪ ভাগের তিন ভাগই পানি। এর শতকরা ১ ভাগ পানি খাওয়ার যোগ্য। বাকী ৯৯ শতাংশ লবন মিশ্রিত ও বরফ পানি। জীবনের জন্য পানি প্রতিক্ষনেই প্রয়োজন। তবে তা হতে হবে নিরাপদ। পানি যে সম্পদ তা জনসাধারনকে সচেতন করতে হবে। টেকসই উন্নয়নের জন্য প্রাকৃতিক পরিবেশকে সংরক্ষন ও সুরক্ষা করার জন্য পানির বিকল্প নেই।
“জল ও জীবিকা” এবারের প্রতিপাদ্যকে রেখে গতকাল ২৭ মার্চ রোববার জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসন ও জন স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর দিনাজপুর আয়োজিত এনজিও ফোরাম ফর পাবলিক হেলথ্ দিনাজপুর অঞ্চল এবং ইউনিটি ফর এনজিও’স দিনাজপুরের সহযোগিতায় জীবিকা স্বীকৃতিঃ স্থানীয় প্রেক্ষিত শীর্ষক সিম্পোজিয়ামে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথাগুলো বলেন। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর দিনাজপুরের নির্বাহী প্রকৌঃ মোঃ মুরাদ হোসেন এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন এনজিও ফোরাম ফর পাবলিক হেলথ্ এর আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক রশিদুল হক। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ আবু রায়হান মিঞা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) তৌফিক ইমাম। দ্বিতীয় পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে সভায় বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার দিনাজপুরের উপ-পরিচালক ইমতিয়াজ হোসেন। মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন দিনাজপুর সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান মোঃ রেজাইন। প্রবন্ধের উপর আলোচনা করেন সিনিয়র তথ্য অফিসার আবুল কালাম মোহাম্মদ শামসুদ্দিন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর দিনাজপুরের উপ-পরিচালক গোলাম মোস্তফা, জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ এনায়েত হোসেন, ইউনিটি ফর এনজিওস এর সাধারন সম্পাদক মোঃ শাহাদাৎ হোসেন শাহ্, ব্রাক জেল প্রতিনিধি মোঃ মহশিন আলী, উদ্যোগ সংস্থার নির্বাহী পরিচালক উম্মে নাহার, সহকারী প্রকৌঃ মোঃ শামীম আহাম্মেদ, অনুঘটক সংস্থার নির্বাহী পরিচালক আনোয়ারুল ইসলাম বাবলু। সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারী প্রকৌঃ মোঃ সায়হান আলী। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন এনজিও ফোরামের প্রোগ্রাম অফিসার মোঃ রেজাউর করিম।