(দিনাজপুর২৪.কম) বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। গতকাল সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে তার দেশত্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের যোগসাজশে সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্রের অভিযোগ ওঠার পর আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করা হলো। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার (উত্তর) শেখ নাজমুল আলম জানান, খিলক্ষেত এলাকায় তাকে গাড়িচালকসহ আটক করা হয়েছে। তাকে গোয়েন্দা কার্যালয়ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের পর পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
গোয়েন্দা সূত্র জানায়, গতকাল সন্ধ্যায় খিলক্ষেত এলাকা থেকে আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করা হলেও কয়েকদিন ধরে তাকে নজরদারি করছিল একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা। গতকাল নিজের গাড়ি নিয়ে উত্তরা থেকে গুলশানে যাওয়ার পথে খিলক্ষেত এলাকায় তাকে আটক করা হয়। পরে চালকসহ আসলাম চৌধুরীকে মিন্টো রোডের গোয়েন্দা কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সোমবার তার বিরুদ্ধে সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা দায়েরের পর তাকে রিমান্ডে নিয়েও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে গোয়েন্দা সূত্র জানিয়েছে।
এদিকে আসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে সরকার উৎখাতের অভিযোগ নিয়ে পাল্টাপাল্টি বক্তব্য পাওয়া গেছে। অভিযোগ ওঠার পর আসলাম চৌধুরী দাবি করেছিলেন তাকে ফাঁদে ফেলা হয়েছে। বিএনপির পক্ষ থেকেও মোসাদের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়টি অস্বীকার করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, আসলাম চৌধুরী মোসাদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে সরকার পতনের ষড়যন্ত্র করছেন। এর অংশ হিসেবেই তিনি ভারতে লিকুদ নেতার সঙ্গে বৈঠক করেন। ইসরায়েলের ক্ষমতাসীন লিকুদ পার্টির সদস্য মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে আসলাম চৌধুরীর একটি ছবি সমপ্রতি গণমাধ্যমে প্রকাশের পর থেকে তাকে ঘিরে আলোচনা-সমালোচনা চলছিল। লিকুদ পার্টির ওই নেতার সঙ্গে আসলাম চৌধুরীর সাক্ষাৎ হয়েছিল ভারতে এক অনুষ্ঠানে। ওই সাক্ষাতের বিষয় স্বীকার করে আসলাম জানিয়েছিলেন ব্যবসায়ী হিসেবে তিনি একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন। সেখানে মেন্দিও ছিলেন। তার সঙ্গে আলাদা কোনো বৈঠক হয়নি বলে দাবি করেন আসলাম।
গত কয়েক দিন ধরে আলোচনার মধ্যে চট্টগ্রামের পুলিশ কমিশনার রোববার সকালে সাংবাদিকদের বলেন, আসলামের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। তাকে পেলেই গ্রেপ্তার করা হবে। নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি তুলে ধরে দুপুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালও সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, নজরদারিতে আছেন আসলাম, আরও তথ্য কালেকশন করে পরবর্তী অ্যাকশনে যাব। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এ বক্তব্য দেয়ার কয়েক ঘণ্টা পরই আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করা হলো।-ডেস্ক