(দিনাজপুর২৪.কম) গান তেমন একটা করা না হলেও মডেল অভিনেত্রী কুসুম সিকদারের এ মাধ্যমটিতেও বিচরণ উল্লেখ করার মতো। তার গাওয়া গান নিয়ে প্রথম একক অ্যালবাম ‘তুমি কত দূরে’ ১৯৯৯ সালে বাজারে আসে। পরবর্তীতে ২০০০ সালে ‘জীবনের যত পাওয়া’ এবং ২০০১ সালে ‘অদল বদল’ নামে আরো দুটি মিশ্র অ্যালবাম বাজারে আসে তার। তবে এবার একটি নতুন গান ও মিউজিক ভিডিও নিয়ে হাজির হয়েছেন তিনি। গানের শিরোনাম ‘নেশা’। হৃদয় খানের সংগীতায়োজনে কুসুমের গাওয়া এ গানটির ভিডিও নির্মাণ করেছেন শুভ্র খান ও শ্রাবণী। দৃশ্যধারণ করা হয়েছে রাজেন্দ্রপুরের নক্ষত্রবাড়িতে। গানটি বৃহস্পতিবার ইউটিউবে প্রকাশ হয়েছে। মিউজিক ভিডিওটি ইতিমধ্যেই দারুণ সাড়া ফেলেছে।একদিনেই দেড় লাখ দর্শক উপভোগ করেছে মিউজিক ভিডিওটি।

এদিকে প্রকাশের পর থেকেই এটি নিয়ে শুরু হয়েছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। কারণ গতানুগতিকতার বাইরে বেরিয়ে গানের ভিডিওটিতে অন্য একরূপে নিজেকে তুলে ধরেছেন কুসুম। অনেকের মতে, গানটিতে বেশ আবেদনময়ীরূপে দেখা যাচ্ছে তাকে। গানে তার সহ মডেল হিসেবে রয়েছেন র‌্যাম্প মডেল সুজন। জানা যায়, এ গানের মিউজিক ভিডিও নির্মাণের আগে অনেক মডেল নির্বাচন করা হয়েছিল। কিন্তু কুসুম সিকদার পরিচালককে সুজনের কথাই বলেছেন।

এর পেছনে কি কারণ ছিলো জানতে চাইলে কুসুম শিকদার বলেন, তেমন কোনো কারণ ছিল না। আবার কারণ বললে বলতে হয় সুজন পরিচালকের পছন্দ এবং এ গানের থিমের সঙ্গে তার লুক মিলে গিয়েছিল। তাই তাকে মডেল হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে। অনেকে তো বলছে, আপনাকে কোনো গানে এমন খোলামেলাভাবে দেখা যায়নি? এর উত্তরে কুসুম শিকদার বলেন, আমার তো মনে হয় না আমাকে খোলামেলা লেগেছে। তবে এমন কুসুমকে দর্শক আগে কখনো দেখেননি। তাই হয়তো অনেকের কাছে তেমন মনে হয়েছে। প্রসঙ্গক্রমে কুসুম আরো বলেন, শুভ্র খানের পরিচালনায় এ গানের শুটিংয়ে ডিওপি হিসেবে ছিলেন রাজু রাজ। গানটি লেখার পাশাপাশি এতে কণ্ঠ দিয়েছি আমি। গানের শুটিং করতে গিয়ে সুইমিং পুলের একটি দৃশ্যে পারফরম করতে দেখা যায় কুসুম শিকদারকে। এখানে মজার কোনো ঘটনা আছে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, সুইমিং পুলের পানি অনেক ঠান্ডা ছিলো। তার উপর আবার ওই সময় বৃষ্টি হচ্ছিলো। বৃষ্টি থামার মাঝে মাঝে শট দিচ্ছিলাম। তাও রাত তখন ১০টার বেশি। আমার কো-মডেল সুজন ঠান্ডায় জমে গিয়েছিলেন। এত কাঁপছিলেন যে শট নেবার অবস্থা ছিল না।

এরপর ৪-৫ কাপ কফি খাইয়ে তাকে নরমাল করা হয়। এই তো। আর আপনার এই গানের ভিডিও দেখার পর সবাই আপনাকে আবেদনময়ী বলছে। এটা কিভাবে নিচ্ছেন ? জবাবে কুসুম বলেন, আমার মনে হয় সব মেয়েরই আবেদনময়ী কথাটা শুনতে ভালো লাগে। আর আমি তো শোবিজের মানুষ। তাই এটা শুনতে তো খারাপ লাগার কথা নয়। মডেলিং ও অভিনয়ে ক্যারিয়ার গড়লেও কুসুম শিকদার নজরুল একাডেমি থেকে নজরুল ও উচ্চাঙ্গ সংগীতে তালিম নেন। এরপর ওস্তাদ ফুল মোহাম্মদ ও ওস্তাদ মোরশেদের কাছে নজরুল সংগীত ও উচ্চাঙ্গ সংগীতে তালিম নিয়েছেন।

লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর অভিনয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন তিনি। ২০১৫ সালের বইমেলায় প্রকাশ হয় তার কবিতার বই ‘নীল ক্যাফের কবি’। দীর্ঘদিন পর নতুন গানে পাওয়া গেল তাকে। এ বিষয়ে কুসুম শিকদার আরো বলেন, বছর দুয়েক ধরে নতুন করে গান করার তাড়না অনুভব করছিলাম। ‘নেশা’ গানটি রেকর্ডিংয়ের কিছু ভিডিও ফেসবুকে প্রকাশ করেছিলাম। তখন সবার আগ্রহ দেখে অবাক হয়েছিলাম। তারপর গানটি নিয়ে এগুতো থাকি। এরপর মিউজিক ভিডিও প্রকাশ করলাম। বেশ ভালো সাড়া পাচ্ছি।

সামনে নতুন কোনো গানে আবারো তাকে পাওয়া যাবে কিনা জানতে চাইলে কুসুম বলেন, অ্যালবাম করতে চাই না। তবে সিঙ্গেল গান করবো। আর আমার গানের অডিও বা ভিডিওর জন্য স্পন্সর প্রয়োজন। সেভাবে মিললেই করার ইচ্ছে আছে। কোনো ভালো প্রতিষ্ঠান যদি সহযোগিতা করে তাহলে আবারো গান করবো। গানের বাইরে কুসুম শিকদারের সবশেষ দুই বাংলায় ‘শঙ্খচিল’ ছবিটি মুক্তি পায়। এ ছবিতে তিনি ওপারের জনপ্রিয় অভিনেতা প্রসেনজিতের বিপরীতে অভিনয় করেন। ছবিটি পরিচালনা করেন গৌতম ঘোষ। সামনে আবারো গানে বা ছবিতে কিংবা নতুন নাটকের গল্পে দর্শকরা তাকে দেখতে পাবেন। -ডেস্ক