প্রেসরিলিজ (দিনাজপুর২৪.কম) দেশের সর্বোচ্চ করদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় গ্রামীণফোনকে সন্মাননা ও পুরস্কৃত করেছে জাতীয় রাজস্ববোর্ড (এনবিআর)।

রাজধানীর রেডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন হোটেলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এনবিআর গ্রামীণফোনকে ট্যাক্স কার্ড, সার্টিফিকেট এবং ক্রেস্ট প্রদান করেছে। গ্রামীণফোনের সিইও মাইকেল ফোলি ও ডেপুটি সিইও এবং সিএমও ইয়াসির আজমান প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সন্মাননা ও পুরস্কার গ্রহন করেন।

দেশের টেলিযোগাযোগ খাতের ২০১৫-২০১৬,২০১৬-২০১৭,২০১৭-২০১৮ এবং ২০১৮-১৯ অর্থবছরের করসংক্রান্ত মূল্যায়নের ভিত্তিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড গ্রামীণফোনকে ২০১৪, ২০১৫, ২০১৬, ২০১৭ সালের সর্বোচ্চ করদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করে।

যাত্রা শুরুর পর থেকে অপারেটরটি কর, মূল্য সংযোজন কর, শুল্ক, ফোর জি লাইসেন্স এবং স্পেকট্রাম ফি বাবদ ৭৩ হাজার ৮৫ কোটি টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিয়েছে, যা প্রতিষ্ঠানটির মোট আয়ের ৫৪ শতাংশ।

গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাইকেল ফোলি বলেন, “ডিজিটাল বাংলাদেশ বির্নিমানে ধারাবাহিক অবদান রাখতে এনবিআর এর এই স্বীকৃতি আমাদের সবার জন্য একটি অনুপ্রেরণা । গ্রামীণফোন নিয়মিতভাবে তাদের বকেয়া পরিশোধ করে এবং এটি তারই স্বীকৃতি। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক সর্বোচ্চ করদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে আবারও স্বীকৃতি লাভ করতে পেরে আমরা আনন্দিত।”

তিনি বলেন শিক্ষা, “স্বাস্থ্যখাত, সামাজিক কল্যাণমূলক কর্মকাণ্ড এবং রাস্তাঘাট নির্মাণের মতো বিভিন্ন অর্থনৈতিক অবকাঠামো নির্মাণে সরকারি ব্যয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পেরে আমরা গর্বিত। এতে বাংলাদেশের জনগণ আর্থসামাজিকভাবে উপকৃত হবে ।”

বিধিসম্মতভাবে কর প্রদান পদ্ধতিকে উৎসাহিত করতে একই দিনে (নভেম্বর ১৪, ২০১৯) বার্ষিক কর মেলায়ও গ্রামীণফোন অংশগ্রহন করেছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে ‘অ্যাডভান্স ইনকাম ট্যাক্স’ হিসেবে ১৫০ কোটি টাকার চেক হস্তান্তর করেছে গ্রামীণফোন।