মোঃ আফজাল হোসেন (দিনাজপুর২৪.কম)  দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি শ্রমিক ও কর্মচারি ইউনিয়নের নির্বাচন সড়যন্ত্র করে হতে দিলনা প্রতিপক্ষরা। ঝুলে থাকল খনি শ্রমিক ও কর্মচারি ইউনিয়নের নির্বাচন। বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড এর শ্রমিক ও কর্মচারি ইউনিয়ন এর সভাপতি ও বাংলাদেশ তৈল, গ্যাস ও খনিজ সম্পদ সংস্থা শ্রমিক কর্মচারি ফেডারেসন (জাতীয় শ্রর্মিক লীগে অর্ন্তভূূক্ত) ঢাকার সহ সভাপতি মোঃ আবুল কাশেম শিকদার ও ইউনিয়রে সাধারন সম্পাদক মহি উদ্দিন আহম্মেদ এবং সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক স্বাক্ষরিত একটি পত্র বি সি এম সি এল শ্রমিঃও কর্মচারি/ইউ/৩৪০ ০৫/০৩/২০১৭ ইং তারিখে সদয় অবগতির জন্য ব্যবস্থাপনা পরিচালক , বি.সি.এম.সি.এল দিনাজঃরেজিষ্টার অব ট্রেড ইউনিয়ন অধিদপ্তর রাজশাহীকে প্রেরণ করে। যা নির্বাচন অনুষ্ঠান করার লক্ষে কাগজপত্রাদি দাখিল এবং বিদ্যমান অবস্থা অবহিত করনের জন্য বড়পুকুরিয়া খনি শ্রমিক ও কর্মচারি ইউনিয়ন রাজ-১৯৫৬।
২০১৫ইং সালের দাখিল করা রিটান অনুয়ায়ী ইউনিয়নের সদস্য সংখ্যা ৭০ জন। তারা শ্রম আদালত রাজশাহী শ্রম আফিল মামলা ১২৮/২০১৪ অনায়ন করেন। গঠন তন্ত্র সংশোধনী অনায়ন এর অনুমোদন পায় ঐ রেজিষ্টার ভূক্ত খনি শ্রমিক কর্মচারি ইউনিয়ন। আপিল মামলাটিতে তার রায় পায়। শ্রম দপ্তর কতৃপক্ষের সংঙ্গে আলাপ করে ভোটার তালিকা প্রকাশ কারে নির্বাচন করবে। ১৫/০২/২০১৭ ইং তারিখে খনি শ্রমিক কর্মচারি ইউনিয়ন এর সাধারন সভায় আলোচনা হয় যে ৪৫ দিনের মধ্যে বিধি মোতাবেক নির্বাচন করার লক্ষে ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়। কিন্তু খনির কতিপয় ব্যক্তি নির্বাচন পরিচালনা কমিটিকে ভয়ভিতি ও মামলায় জড়িয়ে দিবে এই মর্মে হুমকি দেওয়ার কারনে নির্বাচন বানচাল করে দেন। ফলে নির্বাচন করা আর সম্ভাব হল না মূল সংগঠনের । অবশেষে নির্বাচন পরিচালনার আহবায়ক কমিটি পদত্যাগ করেন। জ্বালনী নিরাপত্তা নিশ্চিত করনের লক্ষে যাতে কোন রকম বিঘœতা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না হয় সে জন্য শ্রম অসন্তোষ পরিহার করা একান্ত প্রয়োজন মনে করে সরকারী/রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ন প্রতিষ্ঠান হিসেবে, প্রতিষ্ঠানে আউটসোসিং বিধিমালা / নিতিমালা প্রনয়ন করা হচ্ছে এবং খনির সূচনা লগ্ন থেকে আউটসোর্সিং এর শ্রমিকদের চাকুরি স্থায়ী করার ব্যাপারে যখন খনি প্রশাসন কে চাপ প্রদান করেন তখনই প্রশাসনের একটি কুচক্রিমহল এই ইউনিয়নটিকে ভেঙ্গে দেওয়ার চক্রান্তে সহযোগীতা করছেন। যাতে তারা একত্রীত হতে না পারে। আর সেই সময় হঠাৎ করে বি.এন.পি ও জামায়াত পন্থি প্ররোচনা কারি কোম্পানির কর্মচারি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (ম্যাকানিক্স) ইউনিয়নের সাবেক সহ সভাপতি (বহিঃকৃর্ত) প্রতিষ্ঠানের শ্রম অসন্তোষ এর পায়তার করে আসছে এবং ইউনিয়ন কে ভেঙ্গে দেওয়ার সড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে বলে ইউনিয়নের সভাপতি আবুল কাশেম ও সাধারন সম্পাদক মোঃ মহি উদ্দিন ০৩/০৪/২০১৭ তাং তারিখে সচিব জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিভাগ সহ সকল দপ্তরে পত্র দ্বারা অবগত করেন। গত পহেলা মে অর্ন্তজাতিক শ্রমিক দিবস পালনে শ্রমিক ও কর্মচারি ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক মোঃ মহি উদ্দিন আহম্মেদ ইউনিয়নে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করতে যান সেই সময় প্রতিপক্ষরা নতুন আহবায়ক কমিটি নিয়ে ইউনিয়নের অফিসে তালা ভেঙ্গে দখল নিতে যান কিন্তু শ্রমিকদের একতা থাকায় দখল করতে পারেনি। স্থানীয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কোন বিশৃঙ্খলা যাতে না হয় সে জন্য তারা সজাগ ছিল।
এব্যাপারে খনি প্রশাসনের উচিৎ হবে ইউনিয়নে বিশৃঙ্খলা যাতে না হয় সেই দিকে নজর দেওয়া।