(দিনাজপুর২৪.কম) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, স্বাধীন দেশে স্বাধীনভাবে মানুষ চলাফেরা করবে, নিজের জীবনকে উন্নত করবে- এটাই তো মানুষের কাম্য। আর সেখানে যদি আন্দোলনের নামে এভাবে মানুষের ক্ষতি করা হয়, তা আমরা বরদাস্ত করবো না। তিনি বলেন, যারা এভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে, তাদের শাস্তির ব্যবস্থা আমরা করব। তাদের কেউ রেহাই পাবে না। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা ইতিমধ্যে আমরা নিতে শুরু করেছি। আজ বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ২০ দলীয় জোটের রাজনৈতিক কর্মসূচির সময় পেট্রলবোমায় দগ্ধ হয়ে হতাহত এবং ক্ষতিগ্রস্ত বাস মালিকদের আর্থিক সহায়তার চেক প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। প্রসঙ্গত চলতি বছরের শুরুতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের রাজনৈতিক কর্মসূচির সময় ক্ষতিগ্রস্ত ১৮৫ জন বাস মালিক, নিহত ১৫ জনের পরিবারের ৩০ জন সদস্য ও ৭জন আহতকে মোট ৮ কোটি ৩৭ লাখ ৫৯ হাজার টাকার চেক হস্তান্তর করেন শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে ভবিষ্যতে বর্বরতা চালালে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হবে। জনগণকে পুড়িয়ে মারা ও জনগণের জানমালের ক্ষতি করা কোনো রাজনীতি নয়। তিনি বলেন, চলতি বছরের শুরু থেকে পরবর্তী ৯২ দিন হরতাল ও অবরোধে সাধারণ নাগরিকদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। যারা এভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে, তাদের শাস্তির ব্যবস্থা আমরা করব। তাদের কেউ রেহাই পাবে না। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা ইতিমধ্যে আমরা নিতে শুরু করেছি।
শেখ হাসিনা বলেন, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি যদি না দেয়া হয়, তাহলে ভবিষ্যতে এ ধরনের কর্মকাণ্ড করার সাহস পাবে। ভবিষ্যতে এভাবে যেন মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করার সাহস না পায়, সেই ধরনের শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। আমরা তা করব। নিজের রাজনীতির লক্ষ্য তুলে ধরে ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করে তিনি বলেন, রাজনীতি করি জনগণের স্বার্থে, জনগণের কল্যাণে, জনগণের মঙ্গলের জন্য। সেই রাজনীতির জন্য জনগণকে পুড়িয়ে মারার, জনগণের ক্ষতি করার, জনগণের জানমালের ক্ষতি করা, সেটা কোনো রাজনীতি নয়। এটা জঙ্গিবাদী কর্মকাণ্ড, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। বিএনপি-জামায়াত জোট সেটাই করেছে। -(ডেস্ক)