1. dinajpur24@gmail.com : admin :
  2. erwinhigh@hidebox.org : adriannenaumann :
  3. dinajpur24@gmail.com : akashpcs :
  4. self@unliwalk.biz : brandymcguinness :
  5. ChristineTrent91@basic.intained.com : christinetrent4 :
  6. rosettaogren3451@dvd.dns-cloud.net : darrinsmalley71 :
  7. Dinah_Pirkle28@lovemail.top : dinahpirkle35 :
  8. vandagullettezqsl@yahoo.com : gastonsugerman9 :
  9. cruz.sill.u.s.t.ra.t.eo91.811.4@gmail.com : howardb00686322 :
  10. azegovvasudev@mail.ru : latricebohr8 :
  11. corinehockensmith409@gay.theworkpc.com : meaganfeldman5 :
  12. kenmacdonald@hidebox.org : moset2566069 :
  13. news@dinajpur24.com : nalam :
  14. NonaShenton@miss.kellergy.com : nonashenton3144 :
  15. vaughnfrodsham2412@456.dns-cloud.net : reneseward95 :
  16. Roosevelt_Fontenot@speaker.buypbn.com : rooseveltfonteno :
  17. Sonya.Hite@g.dietingadvise.club : sonya48q5311114 :
  18. gorizontowrostislaw@mail.ru : spencer0759 :
  19. jcsuave@yahoo.com : vaniabarkley :
মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ১২:১৪ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
নতুন রুপে আসছে দিনাজপুর২৪.কম! ২০১০ সাল থেকে উত্তরবঙ্গের পুরনো নিউজ পোর্টালটির জন্য দেশব্যাপী সাংবাদিক, বিজ্ঞাপনদাতা প্রয়োজন। সারাদেশে সংবাদকর্মী নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা এখনই প্রয়োজনীয় জীবন বৃত্তান্ত সহ সিভি dinajpur24@gmail.com এ ইমেইলে পাঠান।

আজ আন্তর্জাতিক নারী দিবস : রাষ্ট্র পরিচালনায় অদম্য নারী

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ৮ মার্চ, ২০১৯
  • ২ বার পঠিত

-সংগ্রহীত

(দিনাজপুর২৪.কম) আজ ৮ মার্চ, আন্তর্জাতিক নারী দিবস। সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি যথাযথ গুরুত্ব সহকারে পালিত হচ্ছে। এবারের নারী দিবসের প্রতিপাদ্য- ‘সবাই মিলে ভাবো, নতুন কিছু করো, নারী-পুরুষ সমতার নতুন বিশ্ব গড়ো’। এ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে তারা বাংলাদেশ ও বিশ্বের সব নারীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। বাণীতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার বিগত ১০ বছরে নারীর ক্ষমতায়ন ও নারী উন্নয়নে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। রাজনীতি, বিচার বিভাগ, প্রশাসন, শিক্ষা, চিকিৎসা, সশস্ত্রবাহিনী ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সর্বক্ষেত্রে নারীরা যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখছেন। গ্লোবাল জেন্ডার গ্যাপ রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশের অবস্থান দক্ষিণ এশিয়ার সকল দেশের উপরে। তিনি বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত নারীদের পুনর্বাসন ও ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে ১৯৭২ সালে ‘নারী পুনর্বাসন বোর্ড’ গঠন এবং জাতীয় জীবনের সকল ক্ষেত্রে নারীর সমানাধিকার বিষয়টি সংবিধানে নিশ্চিত করেন। শেখ হাসিনা বলেন, সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় দেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে নারীর অংশগ্রহণ ও ক্ষমতায়ন বৃদ্ধির মাধ্যমে ২০২১ সালের মধ্যে আমরা বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে সক্ষম হবো ইনশাআল্লাহ। প্রতিনিয়ত বিশ্বের এগিয়ে চলার সাথে সাথে নারীরাও এগিয়ে চলেছে। পিছিয়ে নেই বাংলাদেশও। শত বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করেই বাংলাদেশি নারীরা এখন যে কোনো সময়ের চেয়ে এগিয়ে। সক্ষমতার ছাপ রেখে চলেছে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জিং পেশায়। যতই দিন যাচ্ছে বাংলাদেশে প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে পুরুষের পাশাপাশি নারীরা সফলতা কুড়িয়ে বেড়াচ্ছেন। পিছিয়ে নেই রাষ্ট্র পরিচালনার কাজেও। রাষ্ট্রের শীর্ষপদ থেকে শুরু করে সর্বনিম্ন স্তরে সমান তালে দেশ গড়ার কাজে নিয়োজিত আছেন নারীরা। সংখ্যা বা হারের তুলনায় পুরুষের চেয়ে পিছিয়ে থাকলেও অতীতের চেয়ে বেশি, অর্থাৎ কালের বিবর্তনে নারীরা এগিয়ে আসছে। বর্তমান সরকারের নানামুখি পদক্ষেপের কারণে প্রশাসনের শীর্ষপদসহ বিভিন্ন দপ্তরে নারীরা সফলভাবে কাজ করে চলেছেন।রাষ্ট্রের অনেকগুলো শীর্ষ পদে আছেন নারীরা। নিজ যোগ্যতা আর দক্ষতায় তারা এ পদে এসেছেন। কারো করুণায় নয়। প্রধানমন্ত্রী, জাতীয় সংসদের স্পিকার, মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী, সাংসদ, সংসদীয় স্থায়ী কমিটি, সচিব, অতিরিক্ত সচিবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর শীর্ষপদে নারী কর্মকর্তারা দায়িত্বপালন করছেন। চতুর্থ মেয়াদে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন তিনি প্রথম বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা জয়লাভ করলে দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন শেখ হাসিনা। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি বিজয় অর্জনের পর ১২ জানুয়ারি শেখ হাসিনা তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিজয় অর্জনের পর ৭ জানুয়ারি চতুর্থবারের মতো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হন শেখ হাসিনা। এর আগে ১৯৮৬ ও ১৯৯১ সালে তিনি জাতীয় সংসদে বিরোধী দলীয়নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। শত বাধা-বিপত্তি এবং হত্যার হুমকিসহ নানা প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে একজন নারী শেখ হাসিনা সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার আদায়ের জন্য অবিচল থেকে সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশের জনগণ অর্জন করেছে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা। শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছে। ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বাংলাদেশের প্রথম নারী স্পিকার। নবম জাতীয় সংসদে ২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে তিনি স্পিকার নির্বাচিত হন। গত একাদশ জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন হলে ৩ জানুয়ারি স্পিকার হিসেবে আবারো শপথ নেন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এর আগে নবম জাতীয় সংসদ মেয়াদে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেন। জাতীয় সংসদের নারী সদস্য সংখ্যা যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি। ৫০ সংরক্ষিত নারী আসনের মধ্যে ৪৯ জন সংসদ সদস্য ছাড়াও সরাসরি ভোটে নির্বাচিত নারী এমপি আছেন ২৩ জন। মন্ত্রিপরিষদে আছেন ৩ জন। এরা হচ্ছেন- শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মুন্নুজান সুফিয়ান এমপি, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এমপি। মন্ত্রিপরিষদে নারী প্রতিনিধির সংখ্যা খুব স্বল্প সময়ে আরও বাড়বে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে। গত মেয়াদেও মন্ত্রণালয় পরিচালনায় সফলতার ছাপ রেখেছেন কয়েকজন নারী রাজনীতিবিদ। সংসদ উপনেতা হিসেবে রয়েছেন সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী। এর আগে গত নবম ও দশম সংসদে একই পদে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন কয়েকজন নারী এমপি। এছাড়াও সরকার পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন রয়েছেন আরও বহু নারী সদস্য।সূত্র মতে, প্রশাসনের শীর্ষ পদ সিনিয়র সচিব, সচিব ও সমমর্যাদায় দায়িত্ব পালন করছেন ৭৭ জন কর্মকর্তা। এর মধ্যে ৫৪ জন পূর্ণাঙ্গ সচিব এবং ২৩ জন ভারপ্রাপ্ত সচিব এবং সচিব পদমর্যাদায় রয়েছেন। একজন সিনিয়র সচিবসহ সচিবের দায়িত্বে রয়েছেন ৯ জন নারী। এরা হচ্ছেন- সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জুয়েনা আজিজ, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুন নাহার, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব বেগম রওনক জাহান, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব বেগম উম্মুল হাসনা, বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমির রেক্টর (ভারপ্রাপ্ত সচিব) কাজী রওশন আকতার, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের ভারপ্রাপ্ত সচিব ও.এন সিদ্দিকা খানম, বাংলাদেশ জ্বালানি ও বিদ্যুৎ গবেষণা কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বেগম সাহিন আহমেদ চৌধুরী, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সচিব) বেগম শামীমা নার্গিস এবং বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান হোসনে আরা বেগম। সূত্র মতে, সচিব ও সমমর্যাদা ছাড়া প্রশাসনে বর্তমানে কর্মরত আছেন ৫ হাজার ৯২৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ কর্মকর্তা আছেন ৪ হাজার ৫৩২ জন এবং নারী কর্মকর্তা ১ হাজার ৩৯১ জন। অতিরিক্ত সচিব আছেন ৫২৬ জন, এর মধ্যে পুরুষ ৪৪৪ জন, নারী ৮২ জন। যুগ্ম সচিব রয়েছেন ৭৩৮ জন, এর মধ্যে পুরুষ ৬৫১ জন, নারী ৮৭ জন। উপ সচিব রয়েছেন ১ হাজার ৮৪০ জন, এর মধ্যে পুরুষ ১ হাজার ৪৭৯ জন, নারী ৩৬১ জন। সিনিয়র সহকারী সচিব হিসেবে রয়েছেন ১ হাজার ৩০৫ জন, এর মধ্যে পুরুষ ৯৩৭ জন, নারী ৩৬৮ জন। সহকারী সচিব রয়েছেন ১ হাজার ৫১৪ জন, এর মধ্যে পুরুষ ১ হাজার ২১ জন এবং নারী ৪৯৩ জন। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জুয়েনা আজিজ বলেন, নারীদের এগিয়ে আসার শর্টকাট কোনো রাস্তা নেই। সততা এবং দায়িত্বশীলতার মধ্য দিয়েই এগিয়ে আসতে হয়। তিনি বলেন, কাজে যত্নশীল ও নিষ্ঠাবান হলে পুরুষ হোক আর নারী হোক, ভালো করবেই। -ডেস্ক

নিউজট শেয়ার করুন..

এই ক্যাটাগরির আরো খবর