-সংগ্রহীত

(দিনাজপুর২৪.কম) আগের রুপে ফিরতে শুরু করেছে রাজধানীর পরিবেশ। আজ থেকে পূর্বের ভাড়ায় গণপরিবহন চলাচল শুরু করেছে। এতে রাজধানীতে বাসের সংখ্যা যেমন বেড়েছে তেমনি বেড়েছে যানজটও। সেইসঙ্গে যাত্রীদের সংখ্যাও তুলনামূলক বেড়েছে।তবে স্বাস্থ্য বিধি মেনে যতো সিট ততো যাত্রী নিয়ে আগের ভাড়ায় গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দেয়া হলেও অনেক ক্ষেত্রে সে নির্দেশনা মানা হচ্ছে না।ভাড়া কমানোয় এখন বাসে অতিরিক্ত যাত্রী উঠানো শুরু হয়েছে। করোনার কারণে ভাড়া দ্বিগুণ হওয়ায় অনেকেই এতোদিন বাসে যাতায়াত বন্ধ রেখেছিলেন। এখন আগের ভাড়ায় ফিরে আসায় বাসে যাত্রী বাড়ছে। এতে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।
সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সরজমিনে মালিবাগ, মগবাজার, মউচাক, সাতরাস্তা এলাকায় দেখা গেছে, রাস্তায় বাসের সংখ্যা তুলনামূলক অনেক বেড়েছে। বাসে যাত্রীর সংখ্যাও বেশি।

কেউ দাঁড়িয়েও রয়েছেন। এ সময় রাস্তায় যানজটের সৃষ্টি হয়। যানবাহন নিয়ন্ত্রণে ট্রাফিক পুলিশকেও ব্যস্ত দেখা গেছে। একদিন আগেও এতোটা ব্যস্ত দেখা যায়নি। যাত্রী ও বাস স্টাফদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশনা থাকলেও আজ অধিকাংশদের মুখে মাস্ক কিংবা গাড়িতে ওঠার সময় স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে দেখা যায়নি।
গত শনিবার সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানান, ১লা সেপ্টেম্বর থেকে গণপরিবহন আগের ভাড়ায় ফিরে যাবে। তবে এ ক্ষেত্রে কয়েকটি শর্ত সংশ্লিষ্টদের প্রতিপালন করতে হবে মন্তব্য করে কাদের বলেন, গণপরিবহনের যাত্রী, চালক, সুপারভাইজার, চালকের সহকারী, টিকিট বিক্রয়কারীসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে হবে। হাতধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত সাবান পানি অথবা হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখতে হবে। আসন সংখ্যার অতিরিক্ত কোনো যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। অর্থাৎ যত সিট তত যাত্রী পরিবহন নীতি কার্যকর হবে। দাঁড়িয়ে যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে গাড়ি চালাতে হবে। ট্রিপের শুরু এবং শেষে যানবাহন জীবাণুমুক্ত করতে হবে। -ডেস্ক