(দিনাজপুর২৪.কম) অদূর ভবিষ্যতে মানুষের মধ্যে কী ধরনের পরিবর্তন আসা সম্ভব তা নিয়ে ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান গুগলের প্রকৌশল পরিচালক রে কুর্জওয়েল। তার মতে, মানুষ তার মস্তিষ্ক সরাসরি ক্লাউডের সঙ্গে সংযুক্ত করতে পারবে এবং তা মাত্র ১৫ বছরের মধ্যেই। ক্লাউড হলো ইন্টারনেট ব্যবহার করে অনলাইনে তথ্য ও প্রোগ্রাম সংরক্ষণ। সম্প্রতি নিউইয়র্কের এক্সপোনেনশিয়াল ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের এক সম্মেলনে রে কুর্জওয়েল মানুষের সঙ্গে ক্লাউড প্রযুক্তির সম্পর্ক নিয়ে ভবিষ্যদ্বাণী করেন। মানুষের মস্তিষ্কের সঙ্গে ক্লাউড প্রযুক্তির সংযোগ ঘটবে এবং চিন্তাভাবনার বিষয়টি হবে কিছুটা জীববিদ্যাগত, কিছুটা যান্ত্রিক। কুর্জওয়েলের এই ভবিষ্যদ্বাণী নিয়ে সিএনএন তাদের প্রতিবেদনের শিরোনাম করেছে-“২০৩০ সালে আমাদের চিন্তাভাবনা বায়োলজিক্যাল ও নন-বায়োলজিক্যালের হাইব্রিড হয়ে যাবে।”
কুর্জওয়েলের মতে, মানুষ তাদের সীমাবদ্ধতাগুলো দূর করতে ক্লাউড প্রযুক্তির সঙ্গে নিজেকে যুক্ত করতে শুরু করবে।
কুর্জওয়েল বলেন, প্রতিটি কারিগরি উন্নতির ইতিবাচক ও নেতিবাচক দুটি দিকই রয়েছে। মানুষ প্রযুক্তিকে যেদিকে নিয়ে যাবে প্রযুক্তি সেই দিকেই অগ্রসর হবে।
কুর্জওয়েল ছাড়াও এই বিষয়টি নিয়ে ভবিষ্যদ্বাণী করেন ইসরাইলের এক অধ্যাপক। জেরুজালেমের হিব্রু বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জুবাল নোয়া হারারি বলেন, মানুষ আর মানুষ থাকবে না, হয়ে যাবে যন্ত্রমানব। মানুষ হিসেবে নিজের ওপর অসন্তুষ্টি, ধর্মবিশ্বাস লোপ পাওয়ায় মানবজাতির মধ্যে আগামী ২০০ বছরের মধ্যেই বিশাল পরিবর্তন আসতে পারে।
তিনি বলেন, মানুষ নিজেকে আপগ্রেড করে আগামী ২০০ বছরের মধ্যেই সাইবর্গ বা যন্ত্রমানবে রূপান্তর করতে সক্ষম হবে। দীর্ঘায়ু লাভের আশায় মানুষ শরীরে যন্ত্র বসিয়ে নিজেকে সাইবর্গ করে তুলবে।
উল্লেখ্য, সাইবর্গ হলো আধুনিক বিজ্ঞানের এমন একটি উদ্ভবান যার মাধ্যমে ক্ষুদ্র কোন প্রাণীর দেহে চিপস বসিয়ে তাকে মানুষের খেয়াল খুশিমতো ব্যবহার করা যাবে।  –(ডেস্ক)