(দিনাজপুর২৪.কম) ফিফা-এএফসির ব্যস্ত সূচির কারণে বিশ্বে আমন্ত্রণমূলক টুর্নামেন্টগুলো অনেক কমে গেছে। বিশ্বের অনেক ঐতিহ্যবাহী টুর্নামেন্ট হারিয়েও গেছে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন এই প্রতিকূলতা ঠেলেও বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ প্রতি বছর আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছে।

শুধু ঘোষণা নয়, আয়োজনও করছে। এমনিতেই সারাবছর ব্যস্ত সূচি থাকে ফিফা-এএফসির। দেশগুলোর ঘরোয়া ব্যস্ততা তো আছেই। তার ওপর ২০১৯ ও ২০২০ বিশ্বকাপ বাছাইয়ের বছর।

যে কারণে কোনো টুর্নামেন্ট আয়োজন করলে দল পাওয়াই একটা কঠিন চ্যালেঞ্জ। যাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়, তারা আন্তর্জাতিক ও ঘরোয়া সিডিউলের ফাঁকফোঁকর মিলিয়ে অংশ নেয়ার চেষ্টা করে।

নভেম্বরের শেষ দশ দিন অনুষ্ঠিত হবে এ বছরের বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট। এরই মধ্যে চূড়ান্ত হয়েছে পাঁচটি দেশ। গেল বারের চেয়েও জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে এবারের আসর। শনিবার (২৬ অক্টোবর) বাফুফের কার্যনির্বাহী কমিটির চূড়ান্ত বৈঠকে চূড়ান্ত হবে সব।

জানিয়েছেন বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ। সোহাগ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ নভেম্বরের শেষ দিকে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন হোস্ট করবো।

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের সিংহভাগ কাজ অলরেডি শেষ। বেশ কিছু দল ইতোমধ্যেই নিশ্চিত করেছে। আগামি কয়েকদিনের মধ্যে বাকি দলগুলোও নিশ্চিত করে ফেলবো।’

গত বছর ১ থেকে ১২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত সর্বশেষ বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ হয়েছিলে তিন ভেন্যুতে। সিলেটে হয়েছিল গ্রুপ পর্ব, কক্সবাজারে সেমিফাইনাল এবং ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ফাইনাল।

এবারও কি এই তিন ভেন্যুতে হবে টুর্নামেন্ট? এখনো চূড়ান্ত কিছু না হলেও ভেন্যু কমবে তা নিশ্চিত। শুধু বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। দুটি ভেন্যু হলে এগিয়ে থাকবে সিলেট জেলা স্টেডিয়াম। -ডেস্ক