(দিনাজপুর২৪.কম) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তাঁর দল একাদশ সংসদ নির্বাচনে জরীপের ভিত্তিতে প্রার্থী মনোনয়ন দেবে।  রবিবার রাতে আওয়ামী লীগ সংসদীয় দলের এক সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্থানীয় নেতাদের জনপ্রিয়তা জানতে প্রতি ছয় মাস পর পর সংসদীয় আসনগুলোতে জরীপ চালানো হবে।  জরীপে যারা ভালো বিবেচিত হবেন, আগামী নির্বাচনে তাদের মনোনয়ন দেয়া হবে। সভায় উপস্থিত কয়েকজন সংসদ সদস্য প্রধানমন্ত্রীর বরাত দিয়ে এ তথ্য জানান।

আগামী নির্বাচনে কারও দায়িত্ব নেবেন না বলে হুঁশিয়ার উচ্চারণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আগামী নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক ও কঠিন হবে। ২০১৪ সালের নির্বাচনে আমি দায়িত্ব নিয়েছি। ওই নির্বাচনে দেড়শ এমপি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে এসেছেন। কিন্তু আগামী নির্বাচনে নিজেদের দায়িত্ব নিজেদেরই নিতে হবে। এবার আমি কারও দায়িত্ব নিতে পারব না। যেই হোন না কেন, জনপ্রিয়তা না থাকলে আমি মনোনয়ন দেব না। আপনারা কে কী করছেন, প্রত্যেকের রিপোর্ট আমার কাছে আছে। ছয় মাস পরপর আমি তথ্য নেই। যার অবস্থা ভালো তাকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে।’

জাতীয় সংসদ ভবনের ট্রেজারি বেঞ্চ কক্ষে অনুষ্ঠিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন শেখ হাসিনা।

আওয়ামী লীগ প্রধান বলেন, জরীপ রিপোর্টে যাদের নাম আসবে, তারাই মনোনয়ন পাবেন। এটি ভুল কি শুদ্ধ- তা কোনো বিষয় নয়।

আগামী নির্বাচনে দলের বিজয় নিশ্চিত করতে সম্মিলিতভাবে কাজ করার জন্য তিনি আওয়ামী লীগ সংসদ সদস্যদের নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রী তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে তাদের দূরত্ব কমিয়ে আনতে এবং সামাজিক মাধ্যমে উন্নয়ন কর্মকা-ের চিত্র তুলে ধরারও নির্দেশ দেন।

আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের প্রধান শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিজয়ী ১৬ স্বতন্ত্র এমপির মধ্যে ১১জন আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। বৈঠকের শুরুতে সংসদীয় দলের নেতা এই ১১জনকে পরিচয় করিয়ে দেন। তারা হলেন গাইবান্ধা-৮-এর আবুল কালাম আজাদ, নওগাঁ-৩-এর ছলিম উদ্দীন তরফদার, কুষ্টিয়া-১-এর রেজাউল হক চৌধুরী, ঝিনাইদহ-২-এর তাহজীব আলম সিদ্দিকী, যশোর-৫-এর স্বপন ভট্টচার্য্য, ঢাকা-৭-এর হাজী মো. সেলিম, নরসিংদী-২-এর কামরুল আশরাফ খান, নরসিংদী-৩-এর সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, মৌলভীবাজার-২-এর আব্দুল মতিন, কুমিল্লা-৩-এর ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন ও কুমিল্লা-৪-এর রাজী মোহাম্মদ ফখরুল। -ডেস্ক