(দিনাজপুর২৪.কম) অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডস অস্কারের ৯০তম আসরের বিদেশী ভাষার চলচ্চিত্র বিভাগে প্রতিযোগিতার জন্য বাংলাদেশ থেকে পাঠানো হচ্ছে চলচ্চিত্র ‘খাঁচা’। ইমপ্রেস টেলিফিল্মের ব্যানারে সরকারি অনুদানে নির্মিত এ ছবিটি পরিচালনা করেছেন আকরাম খান। আজ দুপুরে রাজধানীর একটি হোটেলে আনুষ্ঠানিক এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেয় ৯০তম অস্কার বাংলাদেশ কমিটি।

এতে বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটি ও অস্কার কমিটির চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান খান, অধ্যাপক আবদুর সেলিম, চিত্র পরিচালক মুশফিকুর রহমান গুলজার, আবু মুসা দেবু, আব্দুল লতিফ বাচ্চু, ‘খাঁচা’ ছবির পরিচালক আকরাম খান, অভিনেতা আজাদ আবুল কালাম, ছবিটির অন্যতম প্রযোজক ইমপ্রেস টেলিফিল্মের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর প্রমুখ।

হাবিবুর রহমান খান বলেন, অস্কারে বিদেশী ভাষার বিভাগে প্রতিযোগিতার জন্য বাংলাদেশের চলচ্চিত্র আহ্বান করা হলে ‘সোনা বন্ধু’ ও ‘খাঁচা’ ছবি দুটি জমা পড়ে। এরমধ্যে ‘খাঁচা’ ছবিকে চূড়ান্ত করে অস্কার বাংলাদেশ কমিটি।

তিনি বলেন, কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হকের ছোটগল্প ‘খাঁচা’ অবলম্বনে তৈরি এ চলচ্চিত্রে ব্রিটিশ শাসনামলের দেশভাগের কাহিনি উঠে এসেছে। যৌথভাবে এর চিত্রনাট্য লিখেছেন আজাদ আবুল কালাম ও পরিচালক আকরাম খান।

ফরিদুর রেজা সাগর ছবিটির গল্প প্রসঙ্গে বলেন, ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ রাজত্বের অবসানে ভারতবর্ষ ভাগ হয়ে ধর্মের ভিত্তিতে জন্ম হয় দুটি রাষ্ট্রের। হিন্দু ধর্মাবলম্বিদের জন্য ভারত আর মুসলমানদের জন্য পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তান নিয়ে গঠিত পাকিস্তান রাষ্ট্র। হিন্দুদের একটি বড় অংশ পাকিস্তান থেকে রওনা দেয় ভারতে আর ভারত থেকে মুসলমানদের একটা বড় অংশ পাকিস্তানে।

তিনি বলেন, সাম্প্রদায়িক অসহিষ্ণুতা আর অর্থনৈতিক মন্দার এ সময়ে পূর্ব পাকিস্তানের ব্রাহ্মণ অম্বুজাক্ষের পরিবার সিদ্বান্ত নেয় ওপার বাংলার মুসলিম পরিবারের সাথে ভিটেবাড়ি বিনিময়ের মাধ্যমে দেশান্তরের। ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় বারবার দেশান্তরের চেষ্টা করেও তারা ব্যর্থ হয়। দেশান্তরের মধ্য দিয়ে মুক্তির আকাঙ্খা আর কঠিন বাস্তবতার গরাদ ভাঙ্গতে না পারার অসহায়ত্বের গল্প নিয়েই নির্মিত হয় চলচ্চিত্র ‘খাঁচা’।

পরিচালক আকরাম জানান, এ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া আহসান, চাঁদনী, আজাদ আবুল কালাম, আরমান পারভেজ মুরাদ, কায়েস চৌধুরী, মাহবুবা রেজানুর, সাদিকা রহমান রাইসা, মামুনুর রশীদ প্রমুখ।

তিনি বলেন, ছবিটির চিত্রগ্রহণে ছিলেন তানভীর খন্দকার, সম্পাদনায় সামির আহমেদ ও সঙ্গীত পরিচালনায় বিনোদ রায়। ছবিতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও ডি. এল. রায়ের গান ব্যবহার করা হয়েছে এবং এসব গানে কন্ঠ দিয়েছেন শিল্পী সাগরিকা জামালী। -ডেস্ক