( দিনাজপুর ২৪.কম) অভয়নগর উপজেলার একতারপু গ্রামের দূর্গাপুর এলাকায় মায়ের বাসায় বেড়াতে এসে মেয়ের গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বুধবার বিকালে দূর্গাপুর গ্রামের একটি ভাড়া বাসার মধ্যে থেকে পুলিশ গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় ঝুলন্ত লাশটি উদ্ধার করে।
অভয়নগর থানা পুলিশ জানায়, প্রায় ৪ বছর হয় খুলনার রুপসা আইচগাতী গ্রামের মৃত কবির হোসেনের মেয়ে ফাতেমা আক্তার স্বর্না (১৮) একই গ্রামের খুলনা পলেটেকনিক কলেজের ছাত্র ইউসুফের সাথে প্রেম ঘটিত বিবাহ হয়। পিতৃহীন দরীদ্র পরিবারের মেয়ে স্বর্নার মা নওয়াপাড়ায় আকিজ জুট মিলে সাধারণ শ্রমিকের কাজ করে বলে এ বিবাহ মেনে নিতে পারেনি ইউসুফের পরিবার। যে কারণে স্বর্না ও ইউসুফ আলাদা বাসা ভাড়া করে বসবাস করে আসছিলো বলে নিহতের মা পুলিশকে জানায়। গত ৩ দিন হয় স্বামীর উপর রাগ করে নওয়াপাড়ায় মায়ের বাসায় চলে আসে সে। গতকাল বুধবার মেয়েকে বাসায় রেখে কর্মস্থলে চলে যায় স্বর্নার মা। বিকালে বাসায় এসে দরজা বন্ধ দেখে মেয়েকে আসে পাশে খুঁজে না পেয়ে দরজা ভেঙ্গে ঘরের ভিতরে মেয়ের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়। এ সময় পুলিশে খবর দিলে লাশ উদ্ধার করে যশোর সদর হাসপাতালে ময়না তদন্তের জন্য প্রেরণ করে পুলিশ। স্ত্রী নিহতের খবর ইউসুফের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে (০১৯১৪-৮২৫৮০১) দেয়া হলেও এ পর্যন্ত সে নওয়াপাড়ায় আসেনি বলে পুলিশ জানায়। তবে নিহতের বিষয়ে অভয়নগর থানার এসআই মিলন জানান, ময়না তদন্ত না হওয়া পর্যন্ত বলা সম্ভব নয় এটি আত্মহত্যা না হত্যা।(ডেস্ক)