মো. নুরুন্নবী বাবু দিনাজপুর২৪.কম) অব্যাহত বর্ষণের ফলে দিনাজপুরের বীরগঞ্জে আত্রাই নদীর ভাঙ্গনে কবলে পড়ে ২কিলোমিটার কাচা রাস্তা নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। আর এ কারণে গৃহবন্দি হয়ে পড়েছে ৩ গ্রামের প্রায় ২০হাজার মানুষ। জীবিকার টানে মানুষ কোন মতে ক্ষেতে সরু আইল দিয়ে যাতায়াত করতে পারলেও যানবাহন চলাচল সম্পুর্ণ বন্ধ রয়েছে। ফলে গ্রামের মানুষ মালামাল পরিবহনে চরম বিপাকে পড়েছে। রোগী নিয়ে চিকিৎসা কেন্দ্রে যাতায়াতের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি বেকায়দায় পড়েছে গ্রামটির মানুষগুলি। জানা গেছে, উপজেলার শতগ্রাম ইউনিয়নের আত্রাই নদীর কোল ঘেষে বয়ে যাওয়া পুর্ব কাশিমনগর গ্রামের কাচা সড়কটি কয়েক দিনের অব্যাহত বৃষ্টির কারণে ৫কিলোমিটারের মধ্যে ২কিলোমিটার নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায়। ফলে ঐ রাস্তায় চলাচলকারী কাশিমনগর, কাশিমনগর আশ্রয় এবং আদিবাসী পাড়ার আনুমানিক ২০হাজার মানুষ গৃহবন্দী হয়ে পড়েছে।

কাশিমনগর আশ্রয়ের বাসিন্দা স্কুল শিক্ষক মোঃ একরামুল হক জানান, আত্রাই নদীর ভাঙ্গন গত বছর থেকে রাস্তা দিকে ধেয়ে আসছিল। এ বছর অব্যাহত বর্ষণের ফলে ২কিলোমিটার রাস্তা একেবারেই নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। চলাচলের রাস্তা না থাকায় কার্যত গৃহবন্দী হয়ে পড়েছে এই এলাকার মানুষ। বাই সাইকেল, মটর সাইকেল সহ সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। এ কারণে জরুরী প্রয়োজনের মানুষ ঘর থেকে বেরুতে পারছেনা। বাধ্য হয়ে পায়ে হেটে গ্রামের ক্ষেতের জমির আইল দিয়ে চলাচল করছে।

শতগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান কে.এম.কুতুব উদ্দিন জানান, রাস্তাটি ভাঙ্গনের ফলে ৩টি গ্রামের মানুষ গৃহবন্দি হয়ে পড়েছে। এই সড়ক দিয়ে নদীর ঘাট পেরিয় শতগ্রাম ইউনিয়নের মানুষ তাদের উৎপাদিত পন্য নিয়ে দ্রুত সময়ে খানসামা উপজেলার ভবানীপুর ও মরিয়ম বাজারে যাতায়াত করতো। সেটি বন্ধ হওয়ার কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বেশ কিছু ক্ষুদ্র ও কাঁচামাল ব্যবসায়ী। রাস্তাটির গুরুত্ব বিবেচনা করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বরাবরে আবেদন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।