(দিনাজপুর টোয়েন্টিফোর ডট কম) ভারতের একটি বেসরকারি টেলিভিশনের রিয়েলিটি শোতে অংশ নিয়ে আলোচনায় আসেন বাংলাদেশের উঠতি তরুণ সঙ্গীতশিল্পী মাঈনুল আহসান নোবেল। দুই বাংলার দর্শকরাই তার গায়কীতে মুগ্ধ। শুধু দর্শকদের মুগ্ধতাই নয়, নোবেল প্রশংসা পেয়েছেন খ্যাতনামা সঙ্গীতজ্ঞদের কাছ থেকেও।

তবে নিজের করা অনেক মন্তব্যে অহংকার প্রকাশ পেয়েছে এই উঠতি সঙ্গীতশিল্পীর। যার কারণে নিজেদের পছন্দের তালিকা থেকে নাম কেটে দিচ্ছেন ভক্তরা।

 যার প্রমাণ পাওয়া গেল বাংলাদেশে নোবেলের মুক্তি পাওয়া নোবেলের প্রথম মৌলিক গানে। আজ রবিবার নোবেলের প্রথম মৌলিক গান মুক্তি পেয়েছে। ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফরম ইউটিউবে প্রকাশিত এই গানের পাশে পছন্দের চেয়ে অপছন্দের চিহ্নই বেশি দেখাচ্ছেন ভক্তরা।

এই প্রতিবেদন লেখার সময় থেকে ছয় ঘণ্টা আগে গানটি প্রকাশ করেন নোবেল তার নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে। সেখানে গানটিতে পছন্দের বাটন (লাইক) চাপেন ১৫ হাজার শ্রোতা এবং অপছন্দের (ডিজলাইক) ৬৩ হাজার শ্রোতা। ফলে অপছন্দ করছে কয়েকগুণ শ্রোতা। যেটা নোবেলের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের কারণেই বলে মনে করছেন ভক্তরা।

নোবেলের ভাষ্যমতে তিনি নতুন গাঞ্জ মুক্তির জন্য আলোচনা তৈরির চেষ্টা করছিলেন, যার কারণে সংগীত জগতের অনেক শীর্ষ ও গুণী ব্যক্তিও নোবেলের এসব কাণ্ডে মানসিকভাবে আঘাত প্রাপ্ত হন। শুধু তাই নয়, র‍্যাব অফিসে গিয়ে নোবেলকে ক্ষম চাইতে হয়, ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে নোবেলের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়।; এসব কারণে মারাত্মক ধ্বস নামে নোবেলের জনপ্রিয়তায়। ভক্তরা হয়তো এই নোবেলকে চাননি। যার কারণে নোবেলকে এখন প্রত্যাখান করছেন।

রাহাত নামের এক ভক্ত লিখেছেন, ‘ভাবছিলাম তামাশা গানটা সুন্দর হবে যার জন্য নোবেল এর পক্ষ হয়ে সবার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছি। আমায় ক্ষমা করে দাও ভাইরা তোমরা ঠিক, নোবেল ভুল।’

প্রকাশিত গানের মন্তব্য বাক্সেও নেতিবাচক মন্তব্যের ছড়াছড়ি। ফলে সহসাই নোবেল তার হৃত জনপ্রিয়তা ফিরে পাবেন কি না সন্দেহ রয়েছে। -ডেস্ক রিপোর্ট