suchi-dinajpur24(দিনাজপুর২৪.কম) মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচিকে সহিংসতা কবলিত রাখাইন রাজ্যে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীর বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়া, বেসামরিক মানুষকে হত্যা ও নারীদের ধর্ষণ করার অভিযোগের মধ্যে বৃহস্পতিবার এ আহ্বান জানালো জাতিসংঘ। এক বিবৃতিতে বিশ্বসংস্থাটি বলেছে, সুচিকে সেখানকার বেসামরিক নাগরিকদের আশ্বস্ত করতে হবে যে, তাদেরকে সুরক্ষিত রাখা হবে। এ খবর দিয়েছে রয়টার্স।
খবরে বলা হয়, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী ও সরকার সব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে। ৯ই অক্টোবর তিনটি সীমান্তবর্তী পুলিশ চৌকিতে হামলা চালিয়ে ৯ পুলিশ সদস্যকে হত্যার পর রাখাইনে বিপুল সেনা ঢুকে। শুক্রবার সুচি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে স্থানীয় বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী ও মুসলিমদের মধ্যে অস্থিরতায় ইন্ধন জোগানোর অভিযোগ এনেছেন।
জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি-মুনের বিশেষ উপদেষ্টা বিজয় নামবিয়ার বিবৃতিতে বলেন,‘উগ্রপন্থীদের বিরুদ্ধে কড়া অবস্থান নিতে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের অস্বীকৃতি এবং স্থানীয় জনগণকে নিরাপত্তা প্রদানে সক্রিয় ভ’মিকা গ্রহণের বদলে রক্ষণাÍক কৌশল গ্রহণ করার কারণে ওই অঞ্চলে ও আন্তর্জাতিকভাবে হতাশা জন্ম নিয়েছে। এ উদ্বেগের বিষয়ে বাস্তব পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমেই কেবল এ সংকট সমাধান ও নিজেদের আন্তর্জাতিক অবস্থান অক্ষুণœ রাখতে পারবে সরকার।’ রাখাইন অঙ্গরাজ্যের মংদ ও বুথিদং এলাকায় সুচিকে সফর করার আহ্বানও জানান নামবিয়ার।
এখন পর্যন্ত রাখাইন অঙ্গরাজ্যে সেনা অভিযানে সরকারী হিসাবে কমপক্ষে ৮৬ জন নিহত হয়েছে। ১০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশ সীমান্তে পালিয়েছে। সাবেক জাতিসংঘ মহাসচিব ও সংঘাত সমাধানে গঠিত একটি কমিশনের প্রধান কফি আনান মঙ্গলবার মিয়ানমার নিরাপত্তা বাহিনীকে আইনের শাসনের মধ্যে থেকে কাজ করতে বলেছেন। -ডেস্ক